মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা

আপনার কাছে যদি মনে হয় প্রশ্নটি অধ্যায় অনুযায়ী সঠিক নয় তাহলে সঠিক অধ্যায় ও প্রশ্নটি অথবা কোন প্রকার ভুল থাকলে আমাদের কে জানান ইমেইল করে kabirdepart@gmail.com

Correct :

Wrong :

  • 1. বাংলাদেশে মর্যাদা অনুসারে ৩য় বীরত্বসূচক খেতাব-
  • 2. বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পটভূমিকায় নির্মিত ‘ধীরে বহে মেঘনা’ চলচ্চিত্রের নির্মাতা কে?
  • 3. বঙ্গবন্ধুর 'অসমাপ্ত আত্মজীবনী'- ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ করেন-
  • বঙ্গবন্ধুর 'অসমাপ্ত আত্মজীবনী'- ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ করেন -ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের 'অধ্যাপক ফকরুল আলম'।

  • 4. বঙ্গবন্ধুর 'অসমাপ্ত আত্মজীবনী'- জাপানি ভাষায় অনুবাদ করেন-
  • বঙ্গবন্ধুর 'অসমাপ্ত আত্মজীবনী'- জাপানি ভাষায় অনুবাদ করেন - 'কাজুহিরো ওয়াতানাবে' প্রকাশনা সংস্থা "আকাশি শোতেন"। প্রকাশিত হয়- ২ আগস্ট, ২০১৫ তারিখে।

  • 5. বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা কত সালে গৃহীত হয়?
  • ∎বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা সবুজ আয়তক্ষেত্রের মধ্যে লাল বৃত্ত। সবুজ রং বাংলাদেশের সবুজ প্রকৃতি ও তারুণ্যের প্রতীক, বৃত্তের লাল রং উদীয়মান সূর্য, স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারীদের রক্তের প্রতীক। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার এই রূপটি ১৯৭২ সালের ১৭ জানুয়ারি সরকারীভাবে গৃহীত হয়।

  • 6. ২৬ মার্চ ১৯৭১-এর স্বাধীনতা ঘোষনা বঙ্গবন্ধু জারী করেন-
  • ∎বিভিন্ন সূত্র ও দলিল থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী এই প্রমাণ হয় যে, ২৬-এ মার্চের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, যা ছিল তার বা অন্য কারো হয়ে ঘোষণা দেয়ার অনেক পূর্বে। ২৫ মার্চে মুজিব-ইয়াহিয়া বৈঠক ভেঙে গেলে ইয়াহিয়া গোপণে ইসলামাবাদে ফিরে যান। এবং গণহত্যা চালানোর পর পাকিস্তানি সেনারা সেই রাতেই বঙ্গবন্ধুসহ তার পাঁচ বিশ্বস্ত সহকারীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফাতারের পূর্বে তিনি ওয়ারলেসের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা লিখে যান। মূল ঘোষণার অনুবাদ নিম্নরূপঃ

    "এটাই হয়ত আমার শেষ বার্তা, আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। আমি বাংলাদেশের মানুষকে আহ্বান জানাই, আপনারা যেখানেই থাকুন, আপনাদের সর্বস্ব দিয়ে দখলদার সেনাবাহিনীর

    বিরুদ্ধে শেষ পর্যন্ত প্রতিরোধ চালিয়ে যান। বাংলাদেশের মাটি থেকে সর্বশেষ পাকিস্তানি সৈন্যটিকে উত্খাত করা এবং চূড়ান্ত বিজয় অর্জনের আগ পর্যন্ত আপনাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকুক।"

  • 7. বঙ্গবন্ধুর ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ভাষনের সময়কালে পূর্ব পাকিস্তানে যে আন্দোলন চলছিল সেটি হলঃ
  • ∎অসহযোগ আন্দোলন ১৯৭১ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহবানে ১৯৭১ সালের ২ মার্চ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে পরিচালিত আন্দোলন। এ আন্দোলনে কেন্দ্রীয় শাসনের বিপরীতে স্বশাসন প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রেসকোর্স ময়দানে দিগনির্দেশনামূলক ভাষণের মাধ্যমে অসহযোগ আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

  • 8. মুক্তিযুদ্ধকালীন কোন তারিখে বুদ্ধিজীবীদের ওপর ব্যাপক হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়?
  • ∎ বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড:

    *বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড বলতে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময়টুকুতেই পাকিস্তানী হানাদারবাহিনী কর্তৃক পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশের জ্ঞানী-গুণী ও মুক্তবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষদের হত্যা করাকে বুঝায়।

    *বিশেষ করে ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর রাতে পাকিস্তানী বাহিনী তাদের দেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর ও আল শামস বাহিনীর সহায়তায় দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের নিজ নিজ গৃহ হতে তুলে এনে নির্মম নির্যাতনের পর হত্যা করে।

    *১৯৭১ এর ১৪ ডিসেম্বরের নির্মম হত্যাকাণ্ডের কথা স্মরণ করে প্রতিবছর ১৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশে পালিত হয় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। বুদ্ধিজীবী হত্যার স্মরণে বাংলাদেশের ঢাকার রায়ের-বাজার-বধ্যভূমিতে "বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ" স্থাপন করা হয়েছে।

  • 9. বীরশ্রেষ্ট ক্যাপ্টেন মহীউদ্দিন জাহাঙ্গীরের কবর কোন জেলায়?
  • 10. বাংলাদেশকে স্বীকৃতিদানকারী প্রথম আরব দেশ কোনটি?
  • বাংলাদেশকে স্বীকৃতিদানকারী প্রথমঃ

    প্রথম দেশ ভূটান/ভারত -০৬ ডিসেম্বর, ৭১,

    সমাজতান্ত্রিক দেশ পোল্যান্ড - ১২ জানুয়ারি, ১৯৭২,

    প্রথম ওশেনিয়া দেশ টোঙ্গা -২৫ জানুয়ারী, ১৯৭২,

    প্রথম আফ্রিকান এবং মুসলিম দেশ সেনেগাল -১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭২,

    প্রথম আমেরিকান দেশ বার্বাডোস- ২০ জানুয়ারি, ১৯৭২,

    প্রথম অনাআরব মুসলিম দেশ -মালয়েশিয়া ২৫ ফেব্রম্নয়ারী, ১৯৭২,

    প্রথম আরব দেশ ইরাক - ৮ জুলাই, ১৯৭২,

    প্রথম ইউরোপীয় দেশ- পূর্ব জার্মানি- ১১ জানুয়ারী ১৯৭২।

  • 11. ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু তার ঐতিহাসিক ভাষণটি দেন-
  • 12. মুক্তিযোদ্ধা সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের চাকুরী থেকে অবসর গ্রহণের বয়সসীমা কত?
  • 13. ১৯৭১ সালে পাক-বাহিনীর আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষ । থেকে কে প্রতিনিধিত্ব করেন?
  • 14. অপারেশন সার্চ লাইট কী?
  • 15. মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয় কোন তারিখে?  
  • ১৯৭১ সালের অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয় এপ্রিল ১০ ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে। পাকিস্তানী বাহিনীকে প্রতিরোধ ২৬ মার্চ ১৯৭১ তারিখেই শুরু হলেও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর সংগঠন ও সমন্বয়ে, আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে এবং, সর্বোপরি এই যুদ্ধে প্রত্যক্ষ সহায়তাকারী দেশ ভারতের সরকার ও সেনাবাহিনী সঙ্গে সাংগঠনিক সম্পর্ক রক্ষায় এই সরকারের ভূমিকা ছিল অপরিসীম। এই সরকার গঠনের সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীর বিরূদ্ধতা যুদ্ধের রূপ নেয় এবং স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার সম্ভাবনা প্রতিভাসিত হয়ে ওঠে।

  • 16. জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান কবে প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তন করেন?  
  • ১৯৭১ সালের অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয় এপ্রিল ১০ ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে। পাকিস্তানী বাহিনীকে প্রতিরোধ ২৬ মার্চ ১৯৭১ তারিখেই শুরু হলেও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর সংগঠন ও সমন্বয়ে, আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে এবং, সর্বোপরি এই যুদ্ধে প্রত্যক্ষ সহায়তাকারী দেশ ভারতের সরকার ও সেনাবাহিনী সঙ্গে সাংগঠনিক সম্পর্ক রক্ষায় এই সরকারের ভূমিকা ছিল অপরিসীম। এই সরকার গঠনের সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীর বিরূদ্ধতা যুদ্ধের রূপ নেয় এবং স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার সম্ভাবনা প্রতিভাসিত হয়ে ওঠে।

  • 17. মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর ২ এর অধিনায়ক কে ছিলেন?  
  • নোয়াখালী জেলা, কুমিল্লা জেলার আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন পর্যন্ত এবং ফরিদপুর ও ঢাকার অংশবিশেষ          মেজর খালেদ মোশাররফ (১০ এপ্রিল,১৯৭১-২২ সেপ্টেম্বর,১৯৭১), মেজর এ.টি.এম. হায়দার(২২ সেপ্টেম্বর,১৯৭১-১৪ ফেব্রুয়ারি,১৯৭২)           

  • 18. এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বাংলার স্বাধীনতা আনল যারা ----গানটির রচয়িতা কে?
  • গোবিন্দ হালদার ১৯৩০ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন বাঙালি গীতিকার। তাঁর রচিত প্রথম কবিতা ছিল ‘আর কতদিন’। তিনি প্রায় সাড়ে তিন হাজার কবিতা ও গান লিখেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ দূর দিগন্ত।বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতারে সম্প্রচারিত তার লেখা গানসমূহ মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করতো। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার রচিত উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি, এক সাগর রক্তের বিনিময়ে, পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে, লেফট রাইট লেফট রাইট, হুঁশিয়ার হুঁশিয়ার, পদ্মা মেঘনা যমুনা, চলো বীর সৈনিক, হুঁশিয়ার, হুঁশিয়ার বাংলার মাটি অন্যতম।তিনি ভারতের আকাশবাণী বেতারের তালিকাভুক্ত গীতিকার ছিলেন।

  • 19. মুক্তিযুদ্ধের সময় সমগ্র বাংলাদেশকে কয়টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছিল?
  • আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর এবং সেক্টর কমান্ডারদের নাম,তালিকা এবং কার্যপরিধি।

    ১. চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে ফেনী নদী পর্যন্ত - মেজর জিয়াউর রহমান (এপ্রিল - জুন),মেজর মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (জুন-ডিসেম্বর)    

     ২. নোয়াখালী জেলা, কুমিল্লা জেলার আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন পর্যন্ত এবং ফরিদপুর ও ঢাকার অংশবিশেষ    - মেজর খালেদ মোশাররফ (এপ্রিল-সেপ্টেম্বর), মেজর এ.টি.এম. হায়দার(সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর)    

     ৩.সিলেট জেলার হবিগঞ্জ মহকুমা, কিশোরগঞ্জ মহকুমা, আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে কুমিল্লা ও ঢাকা জেলার অংশবিশেষ    - মেজর কে.এম. শফিউল্লাহ (এপ্রিল-সেপ্টেম্বর), মেজর এ.এন.এম. নুরুজ্জামান (সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর)    

     ৪. সিলেট জেলার পূর্বাঞ্চল এবং খোয়াই-শায়েস্তাগঞ্জ রেললাইন বাদে পূর্ব ও উত্তর দিকে সিলেট-ডাউকি সড়ক পর্যন্ত   - মেজর সি.আর. দত্ত    

    ৫. সিলেট-ডাউকি সড়ক থেকে সিলেট জেলার সমগ্র উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চল&n

  • 20. স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র প্রথম কোথা থেকে প্রচার শুরু করে?
  • ১৯৭১ এর ২৫ মার্চ মধ্য রাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী অপারেশন সার্চলাইটের মাধ্যমে ঢাকা শহরের কয়েক হাজার নিরস্ত্র বাঙালি নিধন করে এবং একই সাথে শেখ মুজিবকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পূর্বে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা এবং একটি সংক্ষিপ্ত বার্তা প্রদান করে যান। বার্তাটি ঢাকা ইপিআর ওয়ারলেস স্টেশান থেকে সিলিমপুর ওয়ারলেস স্টেশানের ইঞ্জিনিয়ার গোলাম রব্বানী ডাকুয়ার হাত দিয়ে চট্টগ্রামে পৌঁছে ২৫ শে মার্চ মধ্যরাতেই। তার পরেই পাকিস্তানীরা ইপিআর ওয়ারলেস ধ্বংস করে দেয়। বিস্তারিত বিবরণ লেখা আছে সাহিত্যিক মাহবুব উল আলমের "বাঙ্গালীর মুক্তিযুদ্ধের ইতিবৃত্ত" বইটিতে। ভোর হবার আগেই বার্তাটির শত শত কপি তৈরী হয়ে যায় একটা সাইক্লোষ্টাইল মেশিনের সাহায্যে। চট্টগ্রামের অনেক জায়গায় মধ্য রাত থেকেই মাইকে বার্তাটি প্রচার করা হয়। এরই প্রেক্ষিতে ২৬ মার্চ দুপুর বেলা চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগ নেতা এম এ হান্নান চট্টগ্রামের কালুরঘাট ট্রান্সমিশান কেন্দ্র হতে প্রথমবারের মত স্বাধীনতার ঘোষণা হিসেবে বঙ্গবন্ধুর ঐ বার্তা পাঠ করেন।

  • 21. ৬ দফা দাবি কোথায় উত্থাপন করা হয়?  
  • ১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি লাহোরে বিরোধী দলসমূহের একটি জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।এ সম্মেলনেই শেখ মুজিব তার ঐতিহাসিক ছয় দফা দাবী পেশ করেন যাতে পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্ত্বশাসনের পরিপূর্ণ রূপরেখা উল্লেখিত হয়েছিল। শেখ মুজিব এই দাবীকে "আমাদের বাঁচার দাবী" শিরোনামে প্রচার করেছিলেন। এই দাবীর মূল বিষয় ছিল একটি দুর্বল কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে পরিচালিত পাকিস্তানী ফেডারেশনে পূর্ব পাকিস্তানের পূর্ণ স্বায়ত্ত্বশাসন। এই দাবী সম্মেলনের উদ্যোক্তারা প্রত্যাখান করেন এবং শেখ মুজিবকে বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে চিহ্নিত করেন। এ কারণে তিনি উক্ত সম্মেলন বর্জন করে পূর্ব পাকিস্তানে ফিরে আসেন। মার্চ মাসের এক তারিখে শেখ মুজিব আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। এই নির্বাচনের পর তিনি ছয় দফার পক্ষে সমর্থন আদায়ের লক্ষ্যে দেশব্যাপী অভিযান পরিচালনা করেন। প্রায় পুরো দেশই ভ্রমণ করেন। এই ভ্রমণের সময় তিনি সিলেট, ময়মনসিংহ এবং ঢাকায় বেশ কয়েকবার পুলিশের হাতে বন্দী হন। বছরের প্রথম চতুর্থাংশেই তাকে আটবার আটক করা হয়েছিল। এই বছরের মে ৮ তারিখে নারায়ণগঞ্জে পাট কারখানার শ্রমিকদের এক র‌্যালিতে অংশগ্রহণের জ

  • 22. বাংলাদেশের সংবিধান সর্বপ্রথম কত তারিখে গণপরিষদে উত্থাপিত হয়?  
  • গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন। এটি একটি লিখিত দলিল। ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দের ৪ঠা নভেম্বর তারিেখ বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে এই সংবিধান গৃহিত হয় এবং একই বছরের ১৬ই ডিসেম্বর বা বাংলাদেশের বিজয় দিবসের প্রথম বার্ষিকী হতে এটি কার্যকর হয়। মূল সংবিধান ইংরেজি ভাষায় রচিত হয় এবং একে বাংলায় অনুবাদ করা হয়। তাই এটি বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় বিদ্যমান। তবে ইংরেজী ও বাংলার মধ্যে অর্থগত বিরোধ দৃশ্যমান হলে বাংলা রুপ অনুসরণীয় হবে।সংবিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে ১৯৭২ সালের ১১ই এপ্রিল ড. কামাল হোসেনকে সভাপতি করে ৩৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়।একই বছরের ১৭ই এপ্রিল থেকে ৩রা অক্টোবর পর্যন্ত এই কমিটি বিভিন্ন পর্যায়ে বৈঠক করে। জনগণের মতামত সংগ্রহের জন্য মতামত আহবান করা হয়। সংগ্রহীত মতামত থেকে ৯৮টি সুপারিশ গ্রহণ করা হয়। ১২ই অক্টোবর, ১৯৭২ তারিখে তৎকালীন আইনমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন সংবিধান বিল গণপরিষদে উত্থাপন করেন। এরপর ৪ঠা নভেম্বর, ১৯৭২ সালে বিলটি পাস হয় এবং আইনে পরিণত হয়।

  • 23. বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীরকে  কোন জেলায় সমাহিত করা হয়?
  • ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর (জন্ম: ৭ মার্চ, ১৯৪৯ - মৃত্যু: ১৪ ডিসেম্বর, ১৯৭১) বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী একজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা। যুদ্ধে অসামান্য বীরত্বের জন্য তাঁকে বীরশ্রেষ্ঠ উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

  • 24. টিয়ার্স অব ফায়ার’কি?
  • 25. ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর বিজয়ের দিনে পাক বাহিনীর আত্ত্বসমর্পন অনুষ্ঠানেবাংলাদেশের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন কে?  
  • এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আবদুল করিম খন্দকার যিনি এ.কে. খন্দকার নামে পরিচিত (জন্ম: জানুয়ারি ১, ১৯৩০) বাংলাদেশের একজন সাবেক সামরিক কর্মকর্তা যিনি বিমানবাহিনী থেকে অবসর গ্রহণের পর রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। তিনি বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর প্রথম প্রধান ছিলেন। ২০০৯-এ বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচনে অংশ নিয়ে তিনি বাংলাদেশ সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে মন্ত্রী নিয়োগ করেন। রাষ্ট্রপতি জিয়া ও এরশাদের শাসনামলে তিনি অস্ট্রেলিয়া ও ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। রাষ্ট্রপতি এরশাদের আমলে তিনি বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন ও উপ-প্রধান সেনাপতি হিসেবে কর্মরত ছিলেন।[ বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে কাজ করছেন।

  • 26.  মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী দেশ কোনটি?
  • 27.  মুজিবনগর সরকারের অর্থমন্ত্রী কে ছিলেন?  
  • মোঃ মনসুর আলী (জানুয়ারি ১৬, ১৯১৯ - নভেম্বর ৩, ১৯৭৫) বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তিনি শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক বাকশাল প্রতিষ্ঠার পর তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি সামরিক বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত একজন ক্যাপ্টেন ছিলেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের প্রাক্কালে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে গঠিত বাংলাদেশ সরকারে তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়ে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর জেলহত্যার ফলে নিহত চার জাতীয় নেতার মধ্যে তিনিও একজন।

  • 28. কোন বিখ্যাত ম্যাগাজিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কে রাজিনীতির কবি (Poet of Politics)আখ্যা দেন?
  • ∎বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাজনীতির কবি (Poet of Politics) আখ্যা দিয়েছিল-নিউজ উইকস।

  • 29. বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক কে ছিলেন?
  • ∎বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সর্বাধিনায়ক--বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

    ∎বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি--বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

    ∎বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষক --বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

    ∎তিনি স্বধীনতার ঘোষণা দেন--১৯৭১ সালে ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে (ওয়ারলেসের মাধ্যমে), তারপর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

    ∎হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি হন-- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।(২০০৪ সালে বিবিসি'র বাংলা রেডিও জরিপে)

  • 30. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষনাপত্র অস্থায়ী সরকারের কে পাঠ করেন?
  • ইউসুফ আলী (জন্ম: অজানা - মৃত্যু: ১৯৯৯) স্বাধীনতার সনদ পাঠক, মুজিবনগর সরকারের ত্রাণ ও পু্নর্বাসন দপ্তরের প্রধান এবং স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী। তিনি দিনাজপুরে জন্মগ্রহন করেন।এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি (১৯৭২-৭৬) ছিলেন।


     

  • 31. ১৭ মার্চ ১৯২০, কি কারনে স্মরনীয়?
  • 32. ২১ শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কোন সনে গৃহীত হয়?
  • একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের জনগণের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন। এটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবেও সুপরিচিত। বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের মর্মন্তুদ ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত একটি দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। ১৯৫২ সালের এই দিনে (৮ ফাল্গুন, ১৩৫৯) বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে কয়েকজন তরুণ শহীদ হন। তাই এ দিনটি শহীদ দিবস হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। কানাডার ভ্যানকুভার শহরে বসবাসরত দুই বাঙ্গালী রফিকুল ইসলাম এবং আবদুস সালাম প্রাথমিক উদ্যোক্তা হিসেবে একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণার আবেদন জানিয়েছিলেন জাতিসংঘের মহাসচিব কফি আনানের কাছে ১৯৯৮ সালে।১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে দিবসটি জাতিসঙ্ঘের সদস্যদেশসমূহে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে।[৩] ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে এখন থেকে প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

  • 33. ঐতিহাসিক ৬ দফা কে ঘোষণা করেন?
  • 34. মুজিবনগর সরকার গঠন করা হয়ে ছিল কবে?
  • 35. মুক্তিযোদ্ধা হতে হলে মুক্তিযুদ্ধের সময় ন্যূনতম বয়স কত বছর হতে হবে?
  • স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর মুক্তিযোদ্ধার সংজ্ঞা নির্ধারণ করা হয়েছে। সংজ্ঞাটি হচ্ছে, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণায় সাড়া দিয়ে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ হতে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে যে সকল ব্যক্তি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন তাঁরাই মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গণ্য হবেন।’ জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) ২৫তম সভায় এই সংজ্ঞা চূড়ান্ত করা হলো।
    বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বৈঠকে মুক্তিযোদ্ধার ন্যূনতম বয়স ১৫ বছর (মুক্তিযুদ্ধকালে) নির্ধারণ করা হয়েছে।  
  • 36. মুক্তিযুদ্ধের সময় "Concert for Bangladesh" এর আয়োজক-
  • ১৯৭১ সালে যখন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলছিল, তখন জর্জ হ্যারিসন তার বন্ধু রবি শংকর এর পরামর্শে নিউইয়র্কের ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেন প্রাঙ্গনে দুটি দাতব্য সঙ্গীতানুষ্ঠান(কনসার্ট) এর আয়োজন করেন। অনুষ্ঠানটি তে জর্জ হ্যারিসন, রবি শংকর ছাড়াও গান পরিবেশন করেন বব ডিলান, এরিক ক্ল্যাপটন, অপ্র বিটল্‌ রিঙ্গো স্টার সহ আরও অনেকে। কনসার্টে জর্জ হ্যারিসন তার নিজের লেখা বাংলাদেশ গান পরিবেশন করেন। কনসার্টের টিকেট, সিডি ও ডিভিডি হতে প্রাপ্ত অর্থ ইউনিসেফের ফান্ডে জমা করা হয়।

  • 37. বিদেশী খেতাব প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা-
  • ১৯৭১ সালের ১৯ই ডিসেম্বর আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের মধ্য দিয়ে বিজয় সুচনা হয় । হানাদারদের হটিয়ে দেয় মুক্তি সেনারা । বাংলাদেশের স্বাধীনতাটায় যতজন বিদেশি মানুষ সাহায্যের হাত বাড়িয়েছিলেন তাদের মধ্যে একজন হলেন ডব্লিউ এইচ ওডারল্যান্ড যিনি বীর প্রতীক খেতাব প্রাপ্ত বিদেশি মুক্তিযোদ্ধা । যিনি সরাসরি যুদ্ধ করেছেন পাকিস্তানি হানাদারদের বিরুদ্ধে ।১৯১৭ সালে নেদারল্যান্ডের আমস্টারডামে জন্ম এই বিদেশি যোদ্ধার । বাটা জুতা কোম্পানী’র চাকুরি ছেড়ে দিয়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশ নেন। সেই বাটা সু কোম্পানী’র প্রোডাকশান ম্যানেজারের চাকুরি নিয়ে বাংলাদেশে আসেন ১৯৭০ সালে। অল্প কয়েকদিনপর জেনারেল ম্যানেজারের দায়িত্ব পান।১৯৭৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে থেকেছেন ওডারল্যান্ড। চাকুরি থেকে অবসর নিয়ে নিয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন অস্ট্রেলিয়া’র পার্থ নগরীতে। ১৮ই মে ২০০১ সালে মৃত্যবরন করেন এই যোদ্ধা । তিনি তার একমাত্র মেয়েকে বলেছিলেন " Bangladesh Mon amor"- বাংলাদেশ আমার ভালোবাসা।

     

  • 38. মুক্তিযুদ্ধের একমাত্র আদিবাসি বীর বিক্রম-

  • ইপিআর-এর একজন সদস্য হিসাবে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ৬ নং সেক্টরে যুদ্ধ করেন। উক্য চিং ১৯৫২ সালে ইষ্ট পাকিস্তান রাইফেলস্‌ (ইপিআর)-এ যোগ দেন এবং ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ নায়েক হিসেবে রংপুর জেলার হাতিবান্ধা বিওপিতে কর্মরত ছিলেন। তিনি সেই বিওপিতে কর্মরত ১ বিহারি কর্মকর্তা ও ২ পাঞ্জাবি সৈন্যকে হত্যা করে ফাঁড়ির অবশিষ্ট ৯ বাঙালি ইপিআর সৈনিককে নিয়ে যুদ্ধে যোগ দেন। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীসংলগ্ন চৌধুরীহাটের যুদ্ধের ঘটনাটি ছিল খুব ভয়াবহ সেখানে মুক্তিবাহিনীর লেফটেন্যান্ট সামাদসহ আশফাকুস সামাদ, বীর উত্তম তাঁর আরও কয়েকজন সহযোদ্ধা শহীদ হন। তিনিও মারা যেতে বা আহত হতে পারতেন। কিন্তু ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন। কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার রায়গঞ্জের অন্তর্গত চৌধুরীহাট। সীমান্তবর্তী এলাকা। নভেম্বরের মাঝামাঝি একদল মুক্তিযোদ্ধা রায়গঞ্জে অবস্থান নেন। তাঁরা কয়েকটি দলে বিভক্ত ছিলেন। একটি দলে ছিলেন ইউ কে চিং। সেখানে ছিল পাকিস্তানি সেনাদের একটি শক্ত অবস্থান। রাতে তাঁরা পাকিস্তানিদের অবস্থানে আক্রমণ করেন। সারা রাত যুদ্ধ চলে। ভোররাতে পাকিস্তানিদের দিক থেকে গোলাগু

  • 39. মুক্তিযুদ্ধের প্রথম শত্রুমুক্ত জেলা-
  • 40. ১৯৫২ সালের তৎকালীন ভাষা আন্দোলন কিসের জন্ম দিয়েছিল?
  • 41. বাংলাদেশের সংবিধান সর্বপ্রথম কোন তারিখে গনপরিষদে উথাপিত হয়?
  • গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন। এটি একটি লিখিত দলিল। ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দের ৪ঠা নভেম্বর তারিেখ বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে এই সংবিধান গৃহিত হয় এবং একই বছরের ১৬ই ডিসেম্বর বা বাংলাদেশের বিজয় দিবসের প্রথম বার্ষিকী হতে এটি কার্যকর হয়। মূল সংবিধান ইংরেজি ভাষায় রচিত হয় এবং একে বাংলায় অনুবাদ করা হয়। তাই এটি বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় বিদ্যমান। তবে ইংরেজী ও বাংলার মধ্যে অর্থগত বিরোধ দৃশ্যমান হলে বাংলা রুপ অনুসরণীয় হবে।সংবিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে ১৯৭২ সালের ১১ই এপ্রিল ড. কামাল হোসেনকে সভাপতি করে ৩৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়।একই বছরের ১৭ই এপ্রিল থেকে ৩রা অক্টোবর পর্যন্ত এই কমিটি বিভিন্ন পর্যায়ে বৈঠক করে। জনগণের মতামত সংগ্রহের জন্য মতামত আহবান করা হয়। সংগ্রহীত মতামত থেকে ৯৮টি সুপারিশ গ্রহণ করা হয়। ১২ই অক্টোবর, ১৯৭২ তারিখে তৎকালীন আইনমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন সংবিধান বিল গণপরিষদে উত্থাপন করেন। এরপর ৪ঠা নভেম্বর, ১৯৭২ সালে বিলটি পাস হয় এবং আইনে পরিণত হয়।

  • 42. মুক্তিযুদ্ধের উপর লিখিত গ্রন্থ ‘আমার কিছু কথা’ এর লেখক কে?
  • 43. স্বাধীনতাযুদ্ধকালে বাংলাদেশকে কয়টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছিল?
  • আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর এবং সেক্টর কমান্ডারদের নাম,তালিকা এবং কার্যপরিধি।

    সেক্টর-১. চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে ফেনী নদী পর্যন্ত - মেজর জিয়াউর রহমান (এপ্রিল - জুন),মেজর মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (জুন-ডিসেম্বর)    

    সেক্টর- ২. নোয়াখালী জেলা, কুমিল্লা জেলার আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন পর্যন্ত এবং ফরিদপুর ও ঢাকার অংশবিশেষ    - মেজর খালেদ মোশাররফ (এপ্রিল-সেপ্টেম্বর), মেজর এ.টি.এম. হায়দার(সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর)    

    সেক্টর- ৩.সিলেট জেলার হবিগঞ্জ মহকুমা, কিশোরগঞ্জ মহকুমা, আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে কুমিল্লা ও ঢাকা জেলার অংশবিশেষ    - মেজর কে.এম. শফিউল্লাহ (এপ্রিল-সেপ্টেম্বর), মেজর এ.এন.এম. নুরুজ্জামান (সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর)    

    সেক্টর- ৪. সিলেট জেলার পূর্বাঞ্চল এবং খোয়াই-শায়েস্তাগঞ্জ রেললাইন বাদে পূর্ব ও উত্তর দিকে সিলেট-ডাউকি সড়ক পর্যন্ত   - মেজর সি.আর. দত্ত    

    সেক্টর-৫. সিলেট-ডাউকি সড়ক থেকে সিলেট জেলার সমগ্র উ

  • 44. আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র জারি করা হয় কবে-  
  • বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ১৯৭১ সালের এপ্রিল ১৭ তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষিত একটি ঘোষণাপত্র। যতদিন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলেছে ততদিন মুজিবনগর সরকার পরিচালনার অন্তর্বর্তীকালীন সংবিধান হিসেবে এই ঘোষণাপত্র কার্যকর ছিল। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হওয়ার পরও এই ঘোষণাপত্র সংবিধান হিসেবে কার্যকর ছিল। ১৯৭২ সালের ডিসেম্বর ১৬ তারিখে যখন দেশের নতুন সংবিধান প্রণীত হয় তখন সংবিধান হিসেবে এর কার্যকারিতার সমাপ্তি ঘটে।

  • 45. ১৯৭১ সালের গৃহীত তেলিয়াপারা দলিলে যে রণকৌশল অবলম্বন করা হয় সেটির প্রণেতা-  
  • 46. বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালের কত তারিখে ঘোষণা করেন ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম’। এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’।
  • সাতই মার্চের ভাষণ ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ৭ই মার্চ ঢাকার রমনায় অবস্থিত রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) অনুষ্ঠিত জনসভায় শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক প্রদত্ত এক ঐতিহাসিক ভাষণ। ১৮ মিনিট স্থায়ী । এই ভাষণে তিনি পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালিদেরকে স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আহবান জানান। এই ভাষণের একটি লিখিত ভাষ্য অচিরেই বিতরণ করা হয়েছিল। এটি তাজউদ্দীন আহমদ কর্তৃক কিছু পরিমার্জিত হয়েছিল। পরিমার্জনার মূল উদ্দেশ্য ছিল সামরিক আইন প্রত্যাহার এবং নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবীটির ওপর গুরুত্ব আরোপ করা।

  • 47. বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি কে ছিলেন?
  • মুহাম্মদ আতাউল গণি ওসমানী, যিনি জেনারেল এম. এ. জি. ওসমানী নামে অধিক পরিচিত (সেপ্টেম্বর ১, ১৯১৮ - ফেব্রুয়ারি ১৬, ১৯৮৪), বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিবাহিনী ও সেনাবাহিনীর প্রধান সেনাপতি ছিলেন।

  • 48. স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান রাখার জন্য কতজন মহিলাকে বীর প্রতীক উপধিতে ভূষিত করা হয়?
  • স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান রাখার জন্য দুইজন মহিলাকে বীর প্রতীক উপধিতে ভূষিত করা হয়। তারা হলেনঃ
    বীর প্রতীক ডা. সেতারা বেগম
    তারামন বেগম

  • 49. স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদানের জন্য “বীরপ্রতীক” উপাধি লাভ করে কতজন?
  • বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা অবদান রেখেছিলেন তাদের মধ্যে থেকে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন জনকে তাদের অবদানের ভিত্তিতে বীর শ্রেষ্ঠ, বীর উত্তম, বীর বিক্রম ও বীর প্রতীক উপাধিতে ভূষিত করেন। বীর প্রতীক চতুর্থ সর্বোচ্চ উপাধি। মোট ৪২৬ জনকে এই উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

  • 50. পাকিস্তান শাসনতান্ত্রিক পরিষদের ধারা বিবরণীতে বাংলা ভাষা ব্যবহারের দাবি কে প্রথম করেছিলেন?
  • ১৯৪৬ সালের নির্বাচনে তিনি কংগ্রেস দলের টিকিটে বঙ্গীয় ব্যবস্থাপক সভার সদস্য নির্বাচিত হন। পাকিস্তানের সংবিধান রচনার জন্য ঐ বছর ডিসেম্বরে পূর্ববঙ্গ হতে তিনি পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৪৭ সালের পর একজন অসাম্প্রদায়িক রাজনীতিক হিসেবে পাকিস্তানের রাজনীতিতে সক্রিয় অংশ গ্রহণ করেন। ১৯৪৮ সালের ২৫ আগস্ট পাকিস্তান গণপরিষদে তিনি অধিবেশনের সকল কার্যবিবরণী ইংরেজি ও উর্দুর পাশাপাশি বাংলাতেও রাখার দাবি উত্থাপন করেন। তিনি পাকিস্তানে পূর্ব পাকিস্তানের জনসংখ্যাই বেশি এবং তারা বাঙালি, সেহেতু অবশ্যই বাংলাকে পূর্ব পাকিস্তানের সকল কার্যাবলীর জন্য ব্যবহার করা উচিত এবং পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া উচিত। কিন্তু লিয়াকত আলী খান সাম্প্রদায়িক বক্তব্যের ভিত্তিতে এই দাবী নাকচ করে দেন।

  • 51. ঐতিহাসিক ২১-দফা দাবির প্রথম দাবিটি কী ছিল ?
  • ১৯৪৭ সালের ১৪ই অগাস্ট পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকেই নতুন রাষ্ট্রের দুই খণ্ডের দুই ভিন্ন ভাষা-সংস্কৃতির মানুষদের এক বন্ধনে বেঁধে রাখার কৃত্রিম প্রচেষ্টা শুরম্ন হয়। পাকিস্তানের মুসলমানদের ঐক্যের সূত্র হিসেবে একটি ভাষা প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা হয়। পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী রাষ্ট্র ভাষা উর্দু করার সিদ্ধান্ত্ম নিলে পূর্ব বাংলার বাঙালিরা তা প্রত্যাখ্যান করে। শিক্ষিত সমাজে প্রতিক্রিয়া প্রবল হয়। ছাত্ররা বাংলা ভাষাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সোচ্চার হয় এবং আন্দোলন শুরম্ন করে। ভাষা আন্দোলন শুরম্ন হয় ১৯৪৭ সালের ৬ই ডিসেম্বর এবং প্রত্যক্ষ সংগ্রামের রূপ নেয় ১৯৪৮ সালের ১১ই মার্চ। ভাষা-আন্দোলনের বিস্ফোরণ ঘটে ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রম্নয়ারি। ২১শে ফেব্রুয়ারি একুশ নামে পরিচিত হলো। একুশ পূর্্ব-বাংলার রাজনীতিতে মৌলিক পরিবর্তন ঘটায়। একুশ থেকে সৃষ্টি হয় ২১-দফা। এই ২১-দফা একটি ঐতিহাসিক দলিল। ২১-দফার চারটি দফা (১, ১৬, ১৭ ও ১৮) ছিল ভাষা ও একুশ সংক্রান্ত।

     

  • 52. ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী ঢাকার কোথায় আত্মসমর্পণ করে?
  • সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত একটি সুপরিসর নগর উদ্যান। এটি পূর্বে রমনা রেসকোর্স ময়দান নামে পরিচিত ছিল। এক সময় ঢাকায় অবস্থিত ব্রিটিশ সৈন্যদের সামরিক ক্লাব এখানে প্রতিষ্ঠিত ছিল। পরবর্তীতে এটি রমনা রেস কোর্স এবং তারপর রমনা জিমখানা হিসাবে ডাকা হত। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের পর মাঠটিকে কখনও কখনও ঢাকা রেস কোর্স নামে ডাকা হত এবং প্রতি রবিবার বৈধ ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হত।একটি জাতীয় স্মৃতিচিহ্নও বটে কেননা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ মার্চের ভাষণ এখানেই প্রদান করেন। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ১৬ই ডিসেম্বার পাকিস্তান সেনাবাহিনী এই উদ্যানেই আত্মসমর্পণ করে মিত্রবাহিনীর কাছে। রেস কোর্স ময়দানের অদূরে অবস্থিত তৎকালীন হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালকে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আত্মসমর্পনের স্থান হিসেবে প্রথমে নির্ধারণ করা হলেও পরবর্তীতে আত্মসমর্পনের জন্য এই মাঠটি নির্বাচন করা হয়।

  • 53. ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে এক ব্যক্তি এক দম্ভোক্তি করে- যা ছিল নিম্নরূপ: “লোকটি এবং তার দল পাকিস্তানের শত্রু, এবার তারা শাস্তি এড়াতে পারবে না।” ‒ এ দম্ভোক্তিকারী ব্যক্তি কে ছিল?
  • জেনারেল ইয়াহিয়া খান (ফেব্রুয়ারি ৪, ১৯১৭ – আগস্ট ১০, ১৯৮০) পাকিস্তান সেনাবাহিনীর প্রাক্তন প্রধান, ও ১৯৬৯ হতে ১৯৭২ খ্রীস্টাব্দ পর্যন্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ও সামরিক শাসক ছিলেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর আদেশেই পাকিস্তান সেনাবাহিনী তদানিন্তন পূর্ব পাকিস্তানে হত্যাযজ্ঞ চালায়। এই যুদ্ধে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে পাকিস্তানের পরাজয়ের পর ইয়াহিয়া খান জুলফিকার আলী ভুট্টোর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন।

  • 54. বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য কত জনকে ‘বীরউত্তম’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়?
  • বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা অবদান রেখেছিলেন তাদের মধ্যে থেকে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন জনকে তাদের অবদানের ভিত্তিতে বীরশ্রেষ্ঠ, বীরউত্তম, বীরবিক্রম ও বীরপ্রতীক উপাধিতে ভূষিত করেন। বীর উত্তম বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বীরত্বের পুরস্কার। মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য ৬৮ জনকে উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছে।

  • 55. 'একুশে ফেব্রুয়ারি' প্রথম সংকলনের সম্পাদক কে?
  • হাসান হাফিজুর রহমান (জুলাই ১৪, ১৯৩২ – এপ্রিল ১, ১৯৮৩) বাংলাদেশের একজন প্রথিতযশা কবি, সাংবাদিক ও সমালোচক ছিলেন। তাঁর পূর্বপুরুষ জামালপুর জেলার অন্তর্গত কুলকান্দি গ্রামে বাস করতেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের দলিল সম্পাদনার জন্য বিখ্যাত।১৯৪৬ সালে তিনি যখন স্কুলছাত্র তখন তার ছোট গল্প “অশ্রুভেজা পথ চলাতে” প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। এরদুবছর পর সোনার বাংলায় তার প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয়। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয় অবদান রাখেন। একুশের চেতনার ওপর ভিত্তি করে তাঁর কবিতা অমর একুশে প্রকাশিত হয় ১৯৫২ সালেই। এটিসহ আরোও কিছু লেখা একত্র করে ১৯৫৩ সালে তিনি তার প্রথম বই একুশে ফেব্রুয়ারী প্রকাশ করেন।

  • 56. পাকিস্তান শাসনতান্ত্রিক পরিষদের ধারা বিবরণীতে বাংলা ভাষা ব্যবহারের দাবি কে প্রথম করেছিলেন?
  • 57. মুক্তিযুদ্ধকালে বাংলাদেশ কে কয়টি সেক্টরে ভাগ করা হয়?
  • 58. ছয়-দফা দাবি প্রথম কোথায় উত্থাপিত হয়?
  • ∎ছয় দফা:

    ছয় দফা আন্দোলন বাংলাদেশের একটি ঐতিহাসিক ও গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ঘটনা। ১৯৬৬ সালের ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি লাহোরে অনুষ্ঠিত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর এক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে “৬ দফা দাবি” পেশ করেন। আনুষ্ঠানিকভাবে ছয় দফা উত্থাপন করা হয় লাহোর প্রস্তাবের সাথে মিল রেখে ২৩ মার্চ।

  • 59. আনুষ্ঠানিক ভাবে স্বাধীনতার ঘোষনা পত্র কবে জারি করা হয়?
  • 60. মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের দিন আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন কে?  
  • 61. মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বের জন্য কয়জনকে সর্বোচ্চ সম্মান বীরশ্রেষ্ঠ খেতাব দেওয়া হয়েছে? 
  • ৭ জন বীরশ্রেষ্ঠ এর নাম ও তাদের পদবী

    1.মোস্তফা কামাল(সিপাহী).
    2.মুন্সি আব্দুর রউফ(ন্যান্স নায়েক).
    3.মতিউর রহমান(ফ্লাইট ল্যাফটেন্যান্ট).
    4.নুর মুহাম্মদ শেখ(সিপাহী).
    5.হামিদুর রহমান(সিপাহী).
    6.রুহুল আমিন(স্কোয়াডন ইঞ্জিনিয়ার).
    7.মহিউদ্দিন জাহাঙ্গির(ক্যাপ্টেন).

  • 62. বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ঢাকা শহর কোন সেক্টরের অধীনে ছিল? 
  • 63. স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাংলাদেশ কত গুলো সেক্টরে বিভক্ত ছিল?
  • 64. মুজিবনগরে কোন তারিখে স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়েছিল?
  •  ∎১০ এপ্রিল, ১৯৭১ সালে মুজিবনগরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়েছিল।

  • 65. ১৯৭১সালের কত তারিখে মুজিবনগর সরকার গঠিত হয় ?
  • 66. মুক্তিযুদ্ধের সময় কোন সেক্টরে কোন নিয়মিত কমান্ডার ছিলনা?
  • 67. মুক্তিযুদ্ধকালীন ঢাকা কত নং সেক্টরে ছিল?
  • 68. বাংলাদেশে খেতাবপ্রাপ্ত মহিলা মুক্তিযোদ্ধা কত জন?
  • 69. মুক্তিযুদ্ধের অবদানের জন্য বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় পুরষ্কার দেয় কতটি?
  • বীরশ্রেষ্ঠ, বীরউত্তম, বীরবিক্রম, বীরপ্রতীক।

  • 70. তারামন বিবির বাড়ি কোথায়?
  • তারামন বেগম (তারামন বিবি নামে পরিচিত) (জন্ম: অজানা ) বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মহিলা মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করে।

  • 71. কাঁকন বিবির বাড়ি কোথায়?
  • কাঁকন বিবির বাড়ী সুনামগজ্ঞের দোয়ারা বাজার থানার লক্ষীপুর গ্রামে।কাঁকন বিবি খাসিয়া পরিবারে জন্মগ্রহন করেন।তিনি এলাকায় ‘খাসিয়া মুক্তি বেটি’ নামে পরিচিত।

  • 72. সেতারা বিবির বাড়ি কোথায়?
  • 73. ঢাকা সেনানীবাসস্থ মুক্তিযোদ্ধা যাদুঘরের নাম কি?
  • বিজয় কেতন জাদুঘরমুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযোদ্ধা এবং বীরত্বসূচক খেতাবপ্রাপ্তদের স্মরণে নির্মিত। বিজয়  কেতন জাদুঘরের মূলমন্ত্র: ‘অতীতকে শ্রদ্ধা কর, ভবিষ্যতকে আলোকিত কর।’ ঢাকা ক্যান্টনমেণ্টে অবস্থিত এই জাদুঘরটির মূল প্রদর্শনীয় সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক পটভূমি, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় আটক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বন্দিশালা। এগুলির নামকরণ হয়েছে ‘হল অফ ফেম’। তাছাড়া দর্শকরা এখানে দেখতে পাবেন বাংলাদেশের সংবিধানের মূলকপি, জাতীয় পতাকা, বাংলাদেশের মানচিত্র এবং ধাতুপাতে ক্ষোদিত জাতীয় সঙ্গীত।যাদুঘরের মূল ফটকে স্থাপিত হয়েছে একটি ভাস্কর্য। এতে আছে সাত জন মুক্তিযোদ্ধার মূর্তি; এদের একজন হলেন বাংলাদেশের পতাকাবাহী এক নারী। এই বিশেষ ভাস্কর্যটিকেও বিজয় কেতন বলা হয়। পৃথক নাম সত্ত্বেও বঙ্গবন্ধু জাদুঘর বস্ত্তত বিজয় কেতন জাদুঘরেরই একটি অংশ। এটি ‘হল অফ ফেম’ থেকে কয়েক গজ উত্তরে অবস্থিত।

  • 74. মুজিবনগর স্মৃতিসৌধের স্থপতি কে?
  • মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ মেহেরপুর জেলার মুজিবনগরে অবস্থিত। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার যেখানে গঠিত হয় সেখানে এই স্মৃতিসৌধটি গড়ে তোলা হয়েছে। এর স্থপতি তানভীর করিম।

  • 75. মুক্তিযুদ্ধের সময় মুজিবনগর কত নং সেক্টরে ছিল?
  • 76. ১৪ ডিসেম্বর, ১৯৯৩ তারিখে শহীদ বুদ্ধিজীবিদের স্মৃতিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ঢাকার মোট কতগুলি সড়কের নামকরন করা হয়?   
  • 77. স্বাধীনতা যুদ্ধকালে বাংলাদেশকে কয়টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছিল?
  • স্বাধীনতা যুদ্ধকালে বাংলাদেশকে ১১টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছিল। ১. চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে ফেনী নদী পর্যন্ত ২. নোয়াখালী জেলা, কুমিল্লা জেলার আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন পর্যন্ত এবং ফরিদপুর ও ঢাকার অংশবিশেষ ৩. সিলেট জেলার হবিগঞ্জ মহকুমা, কিশোরগঞ্জ মহকুমা, আখাউড়া-ভৈরব রেললাইন থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে কুমিল্লা ও ঢাকা জেলার অংশবিশেষ ৪. সিলেট জেলার পূর্বাঞ্চল এবং খোয়াই-শায়েস্তাগঞ্জ রেললাইন বাদে পূর্ব ও উত্তর দিকে সিলেট-ডাউকি সড়ক পর্যন্ত ৫. সিলেট-ডাউকি সড়ক থেকে সিলেট জেলার সমগ্র উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চল ৬. সমগ্র রংপুর জেলা এবং দিনাজপুর জেলার ঠাকুরগাঁও মহকুমা ৭. দিনাজপুর জেলার দক্ষিণাঞ্চল, বগুড়া, রাজশাহী এবংপাবনা জেলা ৮. সমগ্র কুষ্টিয়া ও যশোর জেলা, ফরিদপুরের অধিকাংশ এলাকা এবং দৌলতপুর-সাতক্ষীরা সড়কের উত্তরাংশ ৯. দৌলতপুর-সাতক্ষীরা সড়ক থেকে খুলনার দক্ষিণাঞ্চল এবং সমগ্র বরিশাল ও পটুয়াখালী জেলা ১০. কোনো আঞ্চলিক সীমানা নেই। নৌবাহিনীর কমান্ডো দ্বারা গঠিত। শত্রুপক্ষ

  • 78. মুজিবনগর কোন তারিখে স্বাধীনতা ঘোষনা করা হয়েছিল?    
  • ১০ এপ্রিল গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করা হয়। এরপর বৈদ্যনাথতলার নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় মুজিবনগর।

  • 79. বীর শ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের পদবী কি ছিল?  
  • বীর শ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের পদবী সিপাহী

  • 80. শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস কবে পালন করা হয়?  
  • ০১/মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর বাংলাদেশ সেনা বাহিনী ক্যাপ্টেন

    ০২/হামিদুর রহমান ,বাংলাদেশ সেনা বাহিনী,সিপাহী

    ০৩/মোস্তফা কামা্‌ল,বাংলাদেশ সেনা বাহিনী,সিপাহী

    ০৪/মোহাম্মদ রুহুল আমিন,বাংলাদেশ নৌ বাহিনী,ইঞ্জিনরুম আর্টিফিসার

    ০৫/মতিউর রহমান,বাংলাদেশ বিমান বাহিনী,ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট

    ০৬/মুন্সি আব্দুর রউফ,বাংলাদেশ রাইফেলস,ল্যান্স নায়েক

    ০৭/নূর মোহাম্মদ শেখ,বাংলাদেশ রাইফেলস,ল্যান্স নায়েক

     

  • 81. বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের পদবী কি ছিল?  
  • ০১/মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর বাংলাদেশ সেনা বাহিনী ক্যাপ্টেন

    ০২/হামিদুর রহমান ,বাংলাদেশ সেনা বাহিনী,সিপাহী

    ০৩/মোস্তফা কামা্‌ল,বাংলাদেশ সেনা বাহিনী,সিপাহী

    ০৪/মোহাম্মদ রুহুল আমিন,বাংলাদেশ নৌ বাহিনী,ইঞ্জিনরুম আর্টিফিসার

    ০৫/মতিউর রহমান,বাংলাদেশ বিমান বাহিনী,ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট

    ০৬/মুন্সি আব্দুর রউফ,বাংলাদেশ রাইফেলস,ল্যান্স নায়েক

    ০৭/নূর মোহাম্মদ শেখ,বাংলাদেশ রাইফেলস,ল্যান্স নায়েক

     

  • 82. বীরশেষ্ঠ পদক প্রাপ্তদের সংখ্যা কত?  
  • ০১/মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর বাংলাদেশ সেনা বাহিনী ক্যাপ্টেন

    ০২/হামিদুর রহমান ,বাংলাদেশ সেনা বাহিনী,সিপাহী

    ০৩/মোস্তফা কামা্‌ল,বাংলাদেশ সেনা বাহিনী,সিপাহী

    ০৪/মোহাম্মদ রুহুল আমিন,বাংলাদেশ নৌ বাহিনী,ইঞ্জিনরুম আর্টিফিসার

    ০৫/মতিউর রহমান,বাংলাদেশ বিমান বাহিনী,ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট

    ০৬/মুন্সি আব্দুর রউফ,বাংলাদেশ রাইফেলস,ল্যান্স নায়েক

    ০৭/নূর মোহাম্মদ শেখ,বাংলাদেশ রাইফেলস,ল্যান্স নায়েক

  • 83. স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা প্রথম উত্তেলিত হয়েছিল ১৯৭১ সালের -  
  • মার্চ ২, ১৯৭১

    ১৯৭১ এর ২ মার্চ জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত হবার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় এক বিশাল সমাবেশ হয়। এ সমাবেশে আ স ম আবদুর রব যখন বক্তৃতা করছিলেন, তখন নগর ছাত্রলীগ নেতা শেখ জাহিদ হোসেন একটি বাঁশের মাথায় পতাকা বেঁধে রোকেয়া হলের দিক থেকে মঞ্চস্থলে মিছিল নিয়ে এগিয়ে আসেন। রব তখন সেই পতাকা তুলে ধরেন।২ রা মার্চ বাংলাদেশে জ্‌তীয় পতাকা দিবস  পালিত হয়।

     

  • 84. মুক্তিযুদ্ধের সময় নৌ কমান্ড গঠিত হয় কোন সেক্টর নিয়ে?
  • ১০ নং সেক্টর ৫১৫ জন নৌবাহিনীর কমান্ডো অধীনস্হ। শত্রুপক্ষের নৌযান ধ্বংসের জন্য বিভিন্ন সেক্টরে পাঠানো হত

  • 85. স্বাধীনতা পদক প্রাপ্ত না
  • 86. ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় জাতিসংঘে কোন দেশ বাংলাদেশের পক্ষে ‘ভেটো  প্রদান করেছিল?
  • ১৯৭১ সালের ৪ ডিসেম্বর জাতিসংঘে বাংলাদেশের পক্ষে ভেটো প্রদান করেছিল সোভিয়েত ইউনিয়ন। তখন জাতিসংঘে সোভিয়েত ইউনিয়নের স্থায়ী প্রতিনিধি ছিলেন ইয়াকফ মালিক। তিনিই প্রথম সোভিয়েত রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধি, যিনি বিশ্বসভায় বাংলাদেশ নামটি উচ্চারণ করেন।
    বর্ণনাঃ
    ১৯৭১ সালের বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ আজ সারা বিশ্বে অতীব তাৎপর্যপূর্ণ একটি ঐতিহাসিক প্রামাণিক দলিল হিসেবে পরিগণিত, যাকে ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ এর স্বীকৃতি দিয়েছে ইউনেস্কো। ১৯৯২ সালে ইউনেস্কো তার ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ এর স্বীকৃতি প্রদান কর্মসূচি শুরু করে। আমাদের সংবিধানের ১৫০(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণ সংবিধানের পঞ্চম তফসিল দ্বারা আমাদের সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। উপরন্তু, সংবিধানের ৭(খ) অনুযায়ী, সংবিধানের ১৫০ অনুচ্ছেদকে সংবিধানের একটি অপরিবর্তনযোগ্য বিধান হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ফলে পঞ্চম তফসিলে উল্লিখিত বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণটি আমাদের সংবিধানের একটি অপরিহার্য ও অপরিবর্তনীয় অংশে পরিণত হয়েছে।
    বর্ণনাঃ
    বাংলাদেশের সংবিধানের তফসিল সমূহ বাংলাদেশের সংবিধানের ৭টি তফসিল –
    প্রথম তফসিল – অন্যান্য বিধান সত্ত্বেও কার্যকর আইন।
    দ্বিতীয় তফসিল – রাষ্ট্রপতি নির্বাচন।
    তৃতীয় তফসিল- শপথ ঘোষণা।
    চতুর্থ তফসিল – ক্রান্তিকাল ও অস্থায়ী বিধানমালা।
    পঞ্চম তফসিল–১৯৭১সালের ৭মার্চ তারিখে ঢাকার রেসকোর্সময়দানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ঐতিহাসিক ভাষণ।
    ষষ্ঠ তফসিল -১৯৭১সালের ২৫মার্চ মধ্যরাত শেষে অর্থাৎ ২৬মার্চ প্রথম প্রহরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক স্বাধীনতার ঘোষণা।
    সপ্তম তফসিল- ১০এপ্রিল ১৯৭১ এর মুজিব নগর সরকারের জারিকৃত স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র

     

  • 87. বঙ্গভঙ্গকালে ভারতের ভাইসরয় কে ছিলেন?
  • ১৯০৫ সালের ১৬ই অক্টোবর ভারতের ভাইসরয় লর্ড কার্জনের আদেশে ১ম বঙ্গভঙ্গ সম্পন্ন হয়। কিন্তু ১৯১১ সালে, প্রচণ্ড গণআন্দোলনের ফলশ্রুতিতে বঙ্গভঙ্গ রহিত হয়।
    দ্বিতীয়বার বঙ্গভঙ্গ হয় ১৯৪৭ সালে। এ সময় ভাইসরয় ছিলেন লর্ড মাউন্টব্যাটেন। এর ফলে পূর্ববঙ্গ পাকিস্তানে এবং পশ্চিমবঙ্গ ভারতে যুক্ত হয়। এই পূর্ববঙ্গই পরবর্তীকালে পাকিস্তানের কাছ থেকে এক রক্তক্ষয়ী বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা লাভ করে ও বাংলাদেশ নামক একটি নতুন রাষ্ট্রের সৃষ্টি করে।

     

  • 88. ৬ দফা দাবী পেশ করা হয়ঃ
  • ছয় দফা আন্দোলন বাংলাদেশের একটি ঐতিহাসিক ও গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ঘটনা। ১৯৬৬ সালের ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি লাহোরে অনুষ্ঠিত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর এক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে “৬ দফা দাবি” পেশ করেন। আনুষ্ঠানিকভাবে ছয় দফা উত্থাপন করা হয় লাহোর প্রস্তাবের সাথে মিল রেখে ২৩ মার্চ। ছয় দফা দাবির মূল উদ্দেশ্য- পাকিস্তান হবে একটি ফেডারেলরাষ্ট্র। ছয় দফা কর্মসূচীর ভিত্তিতে এই ফেডারেলরাষ্ট্রের প্রতিটি অঙ্গরাজ্যকে পূর্ণ স্বায়ত্তশাসন দিতে হবে। ছয়দফা কর্মসূচীর ভিত্তি ছিল ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাব। পরবর্তীকালে এই ৬ দফা দাবিকে কেন্দ্র করে বাঙালি জাতির স্বায়ত্তশাসনের আন্দোলন জোরদার করা হয়। বাংলাদেশের জন্য এই আন্দোলন এতোই গুরুত্বপূর্ণ যে একে ম্যাগনা কার্টা বা বাঙালির মুক্তির সনদও বলা হয়। প্রতি বছর ৭ই জুন বাংলাদেশে '৬ দফা দিবস' পালন করা হয়। ১৯৬৬ সালের ৭ জুন ৬ দফা দাবির পক্ষে দেশব্যাপী তীব্র গণ-আন্দোলনের সূচনা হয়। এই দিনে আওয়ামী লীগের ডাকা হরতালে টঙ্গী, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জে পুলিশ ও ইপিআরের গুলিতে মনু মিয়া, শফিক, শামসুল হকসহ ১১ জন বাঙালি শহীদ হন।

  • 89. বঙ্গবন্ধুসহ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় মােট আসামী সংখ্যা ছিল কত জন?
  • ৬ জানুয়ারি, ১৯৬৮ সালে ২ জন সি. এস. পি অফিসারসহ ২৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের গ্রেফতার সম্পর্কে সরকারী প্রেসনোটে উল্লেখ করা হয় যে, “ গত মাসে (অর্থাৎ ডিসেম্বর, ১৯৬৭) পূর্ব-পাকিস্তানে উদ্‌ঘাঁটিত জাতীয় স্বার্থবিরোধী এক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার অভিযোগে এঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে। ” তৎকালীন পাকিস্তান সরকার এই ষড়যন্ত্রকে "আগরতলা ষড়যন্ত্র" নামে অভিহিত করে। এই একই অভিযোগে ১৭ জানুয়ারি, ১৯৬৮ সালে বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা শেখ মুজিবুর রহমানকেও গ্রেফতার করা হয়। ৩৫ জনকে আসামী করে সরকার পক্ষ মামলা দায়ের করে। উল্লেখ্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এই মামলায় প্রধান আসামি করা হয় ।  


today's words

Current World

  • What is the number of current U.S. Congress which is established on January 3, 2021?

    Ans: 117th

     

  • Joe Biden is current and 46th U.S. President, What number he stands as Democratic President in the history of U.S.?

    Ans: 16th

  • Donald Trump was________ president of Republican party.

    Ans: 19th

  • View All

Blog Category

Features

  • বিসিএস, ব্যাংক, শিক্ষক নিবন্ধন, পিএসসিসহ সব ধরনের MCQ প্রশ্ন এবং সমাধান,
  • অধ্যায় অনুযায়ী অনুশীলন,
  • ইংরেজি এবং গণিত এর জন্য সহজ কৌশল,
  • অসংখ্য মডেল পরীক্ষা,
  • পরীক্ষার পর্যালোচনা,
  • সাম্প্রতিক বিষয় নিয়মিত আপডেট,
  • প্রতিদিন পাঁচটি করে vocabulary (Meaning, Synonyms, Antonyms, Example সহ )।
5201

Students

79288

Questions

150

Model Test