বাংলা সাহিত্যের যুগ

Correct :

Wrong :

  • 1. ‘কালো বরফ’ রচনা করেন-  
  • 2. তত্ত্ববোধিনী পত্রিকার সম্পাদক কে?  
  • তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা ছিল ব্রাহ্মসমাজের তত্ত্ববোধিনী সভার মুখপত্র।ব্রাহ্মধর্মের প্রচার এবং তত্ত্ববোধিনী সভার সভ্যদের মধ্যে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষার উদ্দেশ্যে ১৮৪৩ সালের ১৬ আগস্ট (১ ভাদ্র, ১৭৬৫ শক) অক্ষয়কুমার দত্তের সম্পাদনায় তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা প্রথম প্রকাশিত হয়।

  • 3. ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয়?
  • ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ বা কলেজ অফ ফোর্ট উইলিয়াম ব্রিটিশ ভারতের গভর্নর-জেনারেল লর্ড ওয়েলেসলি প্রতিষ্ঠিত একটি প্রাচ্যবিদ্যা শিক্ষাকেন্দ্র। ১৮০০ সালের ১০ জুলাই কলকাতার ফোর্ট উইলিয়াম চত্বরে এই কলেজ স্থাপিত হয়। এই প্রতিষ্ঠানে সহস্রাধিক সংস্কৃত, আরবি, ফার্সি, বাংলা, হিন্দি ও উর্দু ইংরেজিতে অনূদিত হয়।

  • 4. রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান ধারার প্রথম কবি?
  • শাহ মুহম্মদ সগীর আনুমানিক ১৪-১৫ শতকের কবি। মুসলিম কবিদের মধ্যে তিনিই প্রাচীনতম। তিনি গৌড়ের সুলতান গিয়াসউদ্দিন আজম শাহের রাজত্বকালে (১৩৮৯-১৪১১ খ্রিস্টাব্দে) ইউসুফ-জোলেখা কাব্য রচনা করেন। তাঁর কাব্যে ধর্মীয় পটভুমি থাকলেও তা হয়ে উঠেছে মানবিক প্রেমোপাখ্যান।

  • 5. ভুরসুট পরগনার পান্ডুয়া গ্রামে জন্মগ্রহন করেন-  
  • ভারতচন্দ্র অষ্টাদশ শতাব্দীর ভারতের বর্ধমান প্রদেশের ভুরসুট পরগণার পান্ডুয়া গ্রামে ১৭১২ খৃষ্টাব্দে জমিদার নরেন্দ্রনারায়ণ রায়ের ঔরসে ভবানী দেবীর গর্ভে চতুর্থ তথা কনিষ্ঠ সন্তান রূপে জন্মগ্রহণ করেন। জমির অধিকার সংক্রান্ত বিবাদ সূত্রে নরেন্দ্রনারায়ণ বর্ধমানের রাজা কীর্তিচন্দ্র রায়ের জননীকে কটুক্তি করায় রাজাজ্ঞায় বর্ধমানের সেনাপতি নরেন্দ্রনারায়ণের জমিদারি গ্রাস করে নিলে বাস্তুচ্যূত জমিদার নরেন্দ্রনারায়ণ পালিয়ে যান এবং ভারতচন্দ্র মণ্ডলঘাট পরগনার নওয়াপাড়ায গ্রামে মামার বাড়ীতে চলে আসেন।

  • 6. ডঃ মুহাম্মদ শহীদুল্লার মতে বাংলা ভাষার উদ্ভব-
  • ভাষার ক্রমবিবর্তেনের ধারায় মাগাধি প্রাকৃত বা মাগধি ভাষা থেকে উৎপন্ন হয়েছে ভোজপুরী, মৈথিলি, ওড়িয়া, বাংলা এবং অসমিয়া। ভারতের অঞ্চলের বিচারে এই ছয়টি ভাষার আদি রূপ হিসেবে দুটি ভাগে ভাগ করা হয়। এর পশ্চিমাঞ্চলের প্রাকৃতকে বলা হয় 'পশ্চিম-মাগধি'। আর পূর্বাঞ্চলের মাগধিকে বলা হয় পূর্বাঞ্চলীয় মাগধি।ড. শহীদুল্লাহর মতে: "গৌড়ীয় প্রাকৃত হতেই গৌড়ীয় অপভ্রংশের মাধ্যমে বাংলা ভাষার উদ্ভব হয়েছে "।এর তিনটি আঞ্চলিক রূপ আছে। এই রূপ তিনটি হলো- মধ্য মাগধী, উত্তরাঞ্চলীয় মাগধী এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় মাগধী। এই ভাষার লিপি হলো 'দেবনাগরী'।

  • 7. ড. মুহাম্মদ শহিদুল্লাহর বাংলা সাহিত্যর ইতিহাস গ্রন্থের নাম-
  • 8. কোন সময়কে বাংলা সাহিত্যের অন্ধকার যুগ বলা হয়?
  • ১২০২ সালে গৌড়ে তুর্কি আক্রমণের সময় থেকে ঊনবিংশ শতাব্দির মধ্যভাগ পর্যন্ত সময়কালকে বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ বলা হয়। তবে ১২০১ থেকে ১৩৫০ সাল পর্যন্ত সময়কে বাংলা সাহিত্যের অন্ধকার যুগ বলা হয়। এ যুগে মসলমান ও তুর্কি আক্রমনের কারনে কবি সাহিত্যিক গন ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে থাকতেন। যার কারনে উল্লেখযোগ্য কোন সাহিত্য রচনা করতে পারেন নি তাঁরা। এই সময়ের সাহিত্য মূলতঃ ধর্মীয় বিষয় নির্ভর ছিল। প্রথমদিকের সমস্ত রচনাই ছিল পদ্যমূলক - গদ্যমূলক রচনা চালু হয় অনেক পরে। তুলোট কাগজে লেখা পুথির মাধ্যমে সাহিত্যচর্চা চলত।

  • 9. বংলা ভাষার আদি স্তরের স্থিতিকাল কোনটি ?
  • 10. ‘আমীর হামযা ’ কাব্য রচনা করেন কে ?
  • ফকির গরীবুল্লাহ এদেশের অষ্টাদশ শতাব্দীর একজন সাহিত্যিক। ফকির গরীবুল্লাহ হুগলি জেলার (তখনকার বর্ধমান এর অংশ) বালিয়া পরগনার হাফিজপুর গ্রামের অধিবাসী। গরীবুল্লাহ সম্পর্কে তেমন তথ্য পাওয়া যায় না। তাঁর পিতার নাম শাহ্ দুন্দীর (সাহা দুন্দি)। আমির হামজা প্রথম পর্ব তাঁর রচনা। ফকির গরীবুল্লাহ-এর ইউসুফ-জোলেখা নামে একটি কাব্যগ্রন্থ আছে। মুহম্মদ শহীদুল্লাহ মনে করেন, কাব্যটি ১৭৬৫ সালের পর রচিত। ঐতিহাসিকরা বলেন,আঠারো শতকের মধ্যভাগে ফকির গরীবুল্লাহ কয়েকটি পুঁথি রচনা করেন। সেগুলো হচ্ছে: ইউসুফ জোলেখা, আমির হামজা, সোনাভান ও সতয়পীরের পুঁথি।

  • 11. কবিওয়ালাদের মধ্যে সবচেয়ে খ্যাতি কে অর্জন করেছিল?  
  • কবিগানের উৎপত্তি ও বিকাশ ১৮ শতাব্দীর প্রথমার্ধ থেকে ১৯ শতাব্দীর প্রথমার্ধ পর্যন্ত।

    কবিগানের উল্লেখ্যযোগ্য কবিওয়াল গোঁজলাই গুই, ভরানী বেনে, হরু ঠাকুর, কেষ্টা মুচি, ভোলা ময়রা, এন্টনী ফিরিঙ্গি, নিতাই বৈরাগী। গোঁজলা গুঁই কবিগানের আদিগুরু ছিলেন। হর

  • 12. কবিগানের কয়টি বিভাগ?
  • কবি গানের ৪টি বিভাগ হলো বন্দনা, সখী সংবাদ, বিরহ ও খেউর।

  • 13. কবিগানের উৎপত্তি ও বিকাশ কোন শতক পর্যন্ত?  
  • কবিগানের উৎপত্তি ও বিকাশ ১৮ শতাব্দীর প্রথমার্ধ থেকে ১৯ শতাব্দীর প্রথমার্ধ পর্যন্ত। কবিগানের উল্লেখ্যযোগ্য কবিওয়াল গোঁজলাই গুই, ভরানী বেনে, হরু ঠাকুর, কেষ্টা মুচি, ভোলা ময়রা, এন্টনী ফিরিঙ্গি, নিতাই বৈরাগী প্রমুখ। কবিগানের আদিগুরু হিসেবে পরিচিত ছিলেন গোঁজলা গুঁই।

    <
  • 14. “পদ্মাবতী ’’ কে রচনা করেন ?  
  • পদ্মাবতী একটি ঐতিহাসিক প্রণয় উপাখ্যান। চিতোরের রানী পদ্মীনির কাহিনী অবলম্বনে আলাওল পদ্মাবতী রচনা করেছিলেন।

     

  • 15. ‘সতি ময়না ও লোরচন্দ্রানী’ কোন শতকের কাব্য?  
  • সতী ময়না ও লোরচন্দ্রানী হিন্দি ভাষার হিন্দী কবি সাধন এর ‘মৈনাসত’ কাব্য অবলম্বনে রচিত।

     

  • 16. “নসীহত নামা” কোন জাতীয় গ্রন্থ ? 
  • 17. “নসীহত নামা” কে রচনা করেছেন ?
  • 18. আরাকানকে বাংলা সাহিত্য কি নামে উল্লেখ করা হয়েছে   
  • মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিম সীমায় ও চট্টগ্রামের দক্ষিণে সমুদ্রের তীরে আরাকানের অবস্থান।আরাকানকে বাংলা সাহিত্যে ‘রোসাঙ্গ’ নামে অভিহিত করা হয়।রোসাঙ্গ রাজসভা ছিল মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের উর্বর ক্ষেত্রভূমি।এ রাজসভার রাজারা হিন্দু হলেও কবিরা ছিলেন মুসলমান।
    আরাকান রাজসভায় বাংলা সাহিত্যের উল্লেখযোগ্য সাহিত্যিক- দৌলত কাজী, আলাওল, কোরেশী মাগন ঠাকুর, মরদন, আব্দুল করিম খোন্দকর।

  • 19. বাংলা সাহিত্যের কোন সাহিত্যিক আরাকান রাজসভায় স্থান পেয়েছিলেন?    
  • আরাকান রাজসভায় বাংলা সাহিত্যের উল্লেখযোগ্য সাহিত্যিক দৌলত কাজী, আলাওল, কোরেশী মাগন ঠাকুর, মরদন, আব্দুল করিম খোন্দকর।

  • 20. ‘গোরক্ষ বিজয়’র রচিয়তা কে?  
  • শেখ ফয়জুল্লাহ (১৬শ শতক)  মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যের কবি। তাঁর জন্মস্থান নিয়ে মতভেদ আছে। বিভিন্ন মতে তাঁর জন্মস্থান হিসেবে পশ্চিমবঙ্গের বারাসত, দক্ষিণ রাঢ় এবং কুমিল্লার নাম উল্লিখিত হয়েছে।ফয়জুল্লাহর প্রধান তিনটি কাব্যগ্রন্থ হচ্ছে সত্যপীরবিজয় (১৫৭৫), গোরক্ষবিজয় ও গাজীবিজয়। এ ছাড়াও তিনি জয়নবের চৌতিশা, সুলতান জমজমা, রাগমালা ও পদাবলী কাব্য রচনা করেন। উনিশ শতকে ফয়জুল্লাহ নামে একজন দোভাষী শায়ের ছিলেন। তাঁর কাব্যের নাম সত্যপীর। তিনি হাওড়ার পাঁচনা গ্রামের অধিবাসী ছিলেন।

  • 21. নাথ সাহিত্যের উল্লেখ্যযোগ্য কবি কে-
  • বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগে শিব উপাসক এক শ্রেণীর যোগী সম্প্রদায়ের নাথ ধর্মের কাহিনী অবলম্বনে রচিত কাব্যকে নাথ সাহিত্য বলা হয়।

  • 22. রোমান্টিক প্রণয় উপাখ্যান ধারার অন্যতম কবি?  
  • মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যর মুসলমান কবিগণের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য অবদান রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান। রোমান্টিক প্রনয় উপাখ্যান ধারার অন্যতম কবি শাহ মুহাম্মদ সগীর। বাংলা ভাষায় প্রথম মুসলমান কবি শাহ মুহাম্মদ সগীর।

  • 23. বাংলা উপন্যাস সাহিত্য ধারার জনক-  
  • বাংলা সাহিত্য বঙ্কিম চন্দ্র চট্টোপাধ্যায় 'সাহিত্য সম্রাট' হিসেবে পরিচিত। আর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর 'গদ্যর জনক' হিসেবে পরিচিত।

  • 24. ‘আলালের ঘরের দুলাল’ এর রচয়িতা কে?  
  • 'আলালের ঘরের দুলাল' বাংলা সাহিত্যের প্রথম উপন্যাস। প্যারীচাঁদ মিত্রের ছদ্মনাম টেকচাঁদ ঠাকুর। তিনি এই উপন্যাসটি রচনা করেন।

  • 25. টপ্পা গানের জনক কে?  
  • বহুল প্রচলিত ‘নানা দেশের নানান ভাষা, বিনে স্বদেশী ভাষা পুরে কি আশা’। এটির রচয়িতা নিধু বাবু। টপ্পা গান থেকে আধুনিক বাংলা সাহিত্যের গীতিকবিতার সুত্রপাত হয়।

     

     

  • 26. চন্ডীদাস কোন যুগের কবি?  
  • চন্ডীদাস (আনু.১৪শ শতক)  মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের প্রসিদ্ধ কবি। এ নামে চারজন কবির পরিচয় পাওয়া যায়; তাঁরা হলেন: বড়ু চন্ডীদাস, দ্বিজ চন্ডীদাস, দীন চন্ডীদাস ও চন্ডীদাস। এঁদের রচিত পদের ভণিতায় এ নামগুলি পাওয়া যায়। এ চারজন পরস্পর পৃথক ব্যক্তি, নাকি একজনেরই চারটি নাম; পৃথক হলে কে কখন আবির্ভূত হয়েছিলেন, একজন হলেই বা তাঁর সঠিক সময় কোনটা এসব নিয়ে বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে একটি সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে, যা ‘চন্ডীদাস সমস্যা’ নামে পরিচিত। আজ অবধি এ সমস্যার সমাধান হয়নি। তবে এঁদের মধ্যে বড়ু চন্ডীদাসকে মোটামুটিভাবে চিহ্নিত করা গেছে। তাঁর জন্ম পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার নান্নুর গ্রামে (মতান্তরে ছাতনা-বাঁকুড়া)। তাঁর পিতা দুর্গাদাস বাগচী ছিলেন বরেন্দ্র শ্রেণীর ব্রাহ্মণ।

  • 27. কাঙ্গাল হরিনাথ কখন আবির্ভূত হন?  
  • কাঙ্গাল হরিনাথ তথা হরিনাথ মজুমদার (জন্ম: ১৮৩৩ - মৃত্যু: ১৬ এপ্রিল, ১৮৯৬) বাংলা লোকসংস্কৃতির অন্যতম ধারক ও বাহক হিসেবে পরিচিত বাউল সঙ্গীতের অন্যতম পথিকৃৎ ছিলেন। তিনি সর্বসমক্ষে ফকির চাঁদ বাউল নামেও পরিচিত ছিলেন।

  • 28. মঙ্গলকাব্য যুগের অবসান ঘটে কার মৃত্যুর সাথে?  
  • ভারতচন্দ্র মধ্যযুগের শ্রেষ্ঠ ও শেষ কবি। ১৭৬০ খ্রিস্টাব্দে ভারতচন্দ্র রায়গুনাকারের মৃত্যুর সাথে সাথে মঙ্গলকাব্য যুগের অবসান ঘটে ।

  • 29. বাংলা গদ্যর উৎপত্তি কখন?    
  • 30. বাংলা গদ্যের জনক কে?      
  • আধুনিক বাংলা গদ্যের জনক ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়, বিদ্যাসাগর নামেই তিনি পরিচিত। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বাঙালির মানস গঠনে, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যর বিকাশে এবং মূল্যবোধ সৃষ্টিতে কালজয়ী ভুমিকা রেখে গেছেন।

  • 31. গীতি কাব্যের রচয়িতা কে?  
  • 32. মহাভারতের আদি রচয়িতা কে?  
  • মহাভারতের মূল ও আদি রচয়িতা কৃষ্ণ দ্বৈপায়ন ব্যাসদেব। মহাভারতের প্রথম অনুবাদক কবীন্দ্র পরমেশ্বর। কবি কাশীরাম দাস হলেন মহাভারতের বিখ্যাত ও জনপ্রিয় অনুবাদক।  

  • 33. বাংলা ভাষায় মহাভারত কে অনুবাদ করেন?  
  • মহাভারতের মূল রচয়িতা কৃষ্ণ দ্বৈপায়ন ব্যাসদেব। মহাভারতের প্রথম অনুবাদক কবীন্দ্র পরমেশ্বর। কবি কাশীরাম দাস হলেন মহাভারতের বিখ্যাত ও জনপ্রিয় অনুবাদক।

  • 34. রামায়ণের আদি রচয়িতা কে?  
  • রামায়ণের প্রথম অনুবাদক পনের শতকের কবি কৃত্তিবাস ওঝা। তিনি রামায়ণের প্রথম ও শ্রেষ্ঠ অনুবাদক। মূল ও আদি রচয়িতা বাল্মীকি ।  

  • 35. বাংলা ভাষায় রামায়ণ কে অনুবাদ করেন  
  • রামায়ণের প্রথম অনুবাদক পনের শতকের কবি কৃত্তিবাস ওঝা। তিনি রামায়ণের প্রথম ও শ্রেষ্ঠ অনুবাদক। মূল রচয়িতা বাল্মীকি ।

  • 36. সুনীতি কুমার চট্টোপাধ্যয় কবে চর্যাপদের ভাষা বাংলা বলে প্রমাণ করেন?
  • 37. চর্যাপদে কাহ্নপার রচিত পদ কয়টি?
  • চর্যাপদের রচয়িতা কাহ্নপা, লুইপা, কুক্কুরীপা, ভুসুকু, সরহপাদ সহ মোট ২৪ জন।চর্যাপদে কাহ্নপার রচিত পদ ১৩ টি

  • 38. সর্বসমেত কয়টি চর্যাগীতি পাওয়া গিয়েছে?
  • চর্যা সংগ্রহটিতে সর্বসমেত ৫১ টি চর্যাগীতি ছিল। ২৪,২৫,৪৮ সংখ্যক, চর্যার প্রাপ্ত পুঁথিতে সম্পূর্ন পাওয়া যায় নি। ২৩ সংখ্যক পদের শেষাংশ পাওয়া যায় নি। সর্ব মোট সাড়ে ৪৬ টি পদ পাওয়া যায়।

  • 39. চর্যা সংগ্রহটিতে সর্বসমেত কয়টি চর্যাগীতি ছিল?
  • চর্যা সংগ্রহটিতে সর্বসমেত ৫১ টি চর্যাগীতি ছিল। ২৪,২৫,৪৮ সংখ্যক, চর্যার প্রাপ্ত পুঁথিতে সম্পূর্ন পাওয়া যায় নি। ২৩ সংখ্যক পদের শেষাংশ পাওয়া যায় নি। সর্ব মোট সাড়ে ৪৬ টি পদ পাওয়া যায়।

  • 40. চর্যাগীতিকা হরপ্রসাদ শাস্ত্রী কর্তৃক কবে প্রকাশিত হয়েছিল ?
  • 'বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ' থেকে প্রাপ্ত পুঁথিগুলো একত্র করে 'হাজার বছরের পুরান বাঙলা ভাষার বৌদ্ধগান ও দোহা' নামে চর্যাগীতিকা হরপ্রসাদ শাস্ত্রী কর্তৃক ১৯১৬ সালে প্রকাশিত হয়।

  • 41. চর্যার প্রাপ্ত কোন পদটির শেষাংশে পাওয়া যায় নি ?
  • ২৩ সংখ্যক পদের শেষাংশ পাওয়া যায় নি। ২৪,২৫,৪৮ সংখ্যক, চর্যার প্রাপ্ত পুঁথিতে সম্পূর্ন পাওয়া যায় নি।

  • 42. চর্যার প্রাপ্ত পুঁথিতে কোন কোন সংখ্যক পদে সম্পূর্ন পাওয়া যায় নি ?
  • ২৪,২৫,৪৮ সংখ্যক, চর্যার প্রাপ্ত পুঁথিতে সম্পূর্ন পাওয়া যায় নি। ২৩ সংখ্যক পদের শেষাংশ পাওয়া যায় নি।

  • 43. বাংলা অক্ষর বা বর্ণমালা কোন সময়ে একচ্ছত্র প্রভাব বিস্তার লাভ করে ?
  • 44. কত সালে ‘শ্রীরামপুর মিশন’ প্রতিষ্ঠিত হয় ?
  • শ্রীরামপুর মিশন (১৮০০-১৮৪৫)  ভারতের প্রথম নিজস্ব প্রচারক সংঘ। ১৮০০ সালের ১০ জানুয়ারি উইলিয়ম কেরী ও ভ্রাতৃবৃন্দ এ মিশন প্রতিষ্ঠা করেন। মিশন হুগলি জেলার দুটি স্থান থেকে বাংলায় যীশুর বাণী প্রচার শুরু করে। এই জেলার ব্যান্ডেলে প্রথম ক্যাথলিক চার্চ প্রতিষ্ঠিত হয় (১৫৯৯)। এর দুশ বছর পর (১৮০০) শ্রীরামপুরে প্রোটেস্ট্যান্ট চার্চ গড়ে ওঠে।

  • 45. কোন যুগে বাংলা লিপি ও অক্ষরের গঠনকার্য শুরু হয় ?
  • 46. খ্রিষ্টপূর্ব ৩য় শতকে কোন শাসকের শাসনমালা ব্রাহ্মী লিপিতে উৎকীর্ন পাওয়া যায়?
  • 47. ভারতীয় লিপিমালার প্রাচীনতম রূপ কয়টি ? 
  • খরোষ্ঠী ও ব্রাহ্মী 

  • 48. কোন লিপি থেকে বাংলা লিপির উদ্ভব ঘটেছে?
  • প্রাচীন ভারতীয় লিপি দুটি। ব্রাহ্মী ও খরোষ্ঠী। ব্রাহ্মী লিপি তিন ভাগে বিভক্ত। পুর্বী লিপি, মধ্য ভারতীয় লিপি এবং পচশিমা লিপি। পুর্বী লিপির কুটিল রূপ হতে বাংলা লিপির উদ্ভব।

  • 49. বাংলা ভাষার সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া যায় কোন ভাষার?
  • 50. বাংলা ভাষা কোন গোষ্ঠীর বংশধর?
  • ইন্দো-ইউরোপীয়>শতম>আর্য>ভারতীয়>প্রাচীন ভারতীয় আর্য>প্রাচীন ভারতীয় কথ্য আর্য>প্রাচীন প্রাচ্য>মাগধী প্রাকৃত/গৌরীয় প্রাকৃত>মাগধী অপভ্রংশ/গৌরীয় অপভ্রংশ>বঙ্গ-কামরুপী>বাংলা।

  • 51. বৈদিক ভাষা হতে বাংলা ভাষায় বিবর্তনের প্রধান ধারা কয়টি?
  • বৈদিক ভাষা হতে বাংলা ভাষায় বিবর্তনের প্রধান ধারা তিনটি। যথাঃ
    *প্রাচীন ভারতীয় 
    আর্য ভাষা
    *মধ্য ভারতীয় আর্য ভাষা
    *নব্য ভারতীয় আর্য ভাষা

  • 52. প্রাচীন ভারতীয় আর্য ভাষার স্তর কয়টি?
  • 53. কোন ভাষা থেকে বাংলা ভাষার উৎপত্তি?
  • ভাষার ক্রমবিবর্তেনের ধারায় মাগাধি প্রাকৃত বা মাগধি ভাষা থেকে উৎপন্ন হয়েছে ভোজপুরী, মৈথিলি, ওড়িয়া, বাংলা এবং অসমিয়া। ভারতের অঞ্চলের বিচারে এই ছয়টি ভাষার আদি রূপ হিসেবে দুটি ভাগে ভাগ করা হয়। এর পশ্চিমাঞ্চলের প্রাকৃতকে বলা হয় 'পশ্চিম-মাগধি'। আর পূর্বাঞ্চলের মাগধিকে বলা হয় পূর্বাঞ্চলীয় মাগধি।সুনীতিকুমার চট্টোপধ্যায়ের মতে: " মাগধী প্রাকৃত থেকেই বাংলা ভাষার উদ্ভব হয়েছে" এবং "মাগধী প্রাকৃতে"র পূর্বতর রূপ হচ্ছে "গৌড় প্রাকৃত"। ড. শহীদুল্লাহর মতে: "গৌড়ীয় প্রাকৃত হতেই গৌড়ীয় অপভ্রংশের মাধ্যমে বাংলা ভাষার উদ্ভব হয়েছে "।এর তিনটি আঞ্চলিক রূপ আছে। এই রূপতিনটি হলো- মধ্য মাগধী, উত্তরাঞ্চলীয় মাগধী এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় মাগধী। এই ভাষার লিপি হলো 'দেবনাগরী'।

  • 54. বাংলা ভাষার উদ্ভব ঘটে কোন দশকে?
  • 55. বাংলা ভাষা কোন আদি বা মূল ভাষা গোষ্ঠীর অর্ন্তগত?
  • ইন্দো-ইউরোপীয়>শতম>আর্য>ভারতীয়>প্রাচীন ভারতীয় আর্য>প্রাচীন ভারতীয় কথ্য আর্য>প্রাচীন প্রাচ্য>মাগধী প্রাকৃত/গৌরীয় প্রাকৃত>মাগধী অপভ্রংশ/গৌরীয় অপভ্রংশ>বঙ্গ-কামরুপী>বাংলা। সুতরাং বাংলা ভাষা ইন্দো-ইউরোপীয় আদি বা মূল ভাষা গোষ্ঠীর অর্ন্তগত।

  • 56. বাংলা ভাষার আদি সাহিত্যিক নিদর্শন কি?
  • বাংলা ভাষার প্রথম কবিতা সংকলন এবং বাংলা ভাষার আদি সাহিত্যিক নিদর্শন চর্যাপদ।

  • 57. পানিণি কোন ভাষার ব্যাকরণকে শৃঙ্খলাবদ্ধ করেন?
  • 58. পাণিনি রচিত গ্রন্থের নাম কি?
  • পাণিণি ছিলেন প্রাচীন ভারতের সংস্কৃত ভাষার একজন প্রথিতযশা grammarian বা বৈয়াকরণ। পাণিণি সংস্কৃত ভাষার সমন্বিত ব্যাকরণ গ্রন্থ রচনা করেন। সংস্কৃত ছিল তৎকালীন সময়ে ভারতীয় আর্যদের ধর্ম ও সাহিত্যে ধ্রুপদী ভাষা; পাণিণিকে একাধারে সংস্কৃত ভাষার জনক ও প্রতিষ্ঠাতার মর্যাদা দেওয়া হয়।সংস্কৃত’ শব্দের অর্থ সম্পূর্ন কিংবা নিখুঁত; এ কারণে ভাষাটিকে প্রাচীন ভারতে স্বর্গীয় ভাষাও ভাবা হত। যে কারণেএকে দেবভাষা বলা হত। পাণিণি পবিত্র দেবভাষা ও যোগাযোগের সাধারণ মাধ্যম হিসেবে আর্য ভাষার পার্থক্য তুলে ধরেছেন ‘অষ্ঠাধায়ী’ গ্রন্থে । পাণিণিরচিত ‘অষ্ঠাধায়ী’-র আটটি অধ্যায়; প্রতি অধ্যায়ের চারটি করে ভাগ। এসব অধ্যায়ে সংস্কৃত ব্যাকরণের সূত্র ও সংজ্ঞা নির্ধারণ করেছেন। সংস্কৃত ব্যাকরণের ১৭০০টি মূল ধারণা সম্বন্ধে লিখেছেন। যেমন বিশেষ্য, বিশেষন, পদ, ক্রিয়া, কারক, বিভক্তি ইত্যাদি। স্বরবর্ণ ও ব্যঞ্জনবর্ণে শ্রেণিবিভাগ করে দেখিয়েছেন। বাক্যের গঠন, যৌগবিশেষ্য, এমন ভাবে ব্যাখ্যা করেছেন যে মনেই হয় না ‘অষ্ঠাধায়ী’ গ্রন্থটি ২৫০০ বছর আগে লেখা।

  • 59. ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে বাংলা ভাষার উৎস কোন অপভ্রংশ থেকে?
  • 60. প্রাকৃত ভাষা বিবর্তিত হয়ে শেষ যে স্তরে উপনীত হয় তার নাম কি?
  • 61. সংস্কৃত ভাষা কত অব্দে চূড়ান্তভাবে বিধিবদ্ধ হয়?
  • 62. কোন ব্যাকরণবিদের কাছে সংস্কৃত ভাষা চূড়ান্তভাবে বিধিবদ্ধ হয়?
  • 63. কোন ভাষা বৈদিক ভাষা নামে স্বীকৃত?
  • প্রাচীন ভারতীয় আর্য, মধ্য ভারতীয় আর্য ও নব্য ভারতীয় আর্য

  • 64. বৈদিক ভাষা থেকে বাংলা ভাষা পর্যন্ত বিবর্তনের প্রধান ধারা কয়টি?
  • প্রাচীন ভারতীয় আর্য, মধ্য ভারতীয় আর্য ও নব্য ভারতীয় আর্য

  • 65. বাংলা ভাষার মূল উৎস কোন ভাষা?
  • 66. আর্য ভারতীয় গোষ্ঠীর প্রাচীনতম সাহিত্যেক ভাষার নাম কি?
  • 67. ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে খ্রীষ্টপূর্ব কত পর্যন্ত বাংলা ভাষার অস্তিত্ব ছিল?
  • 68. বাংলা গদ্যের ব্যাপক ব্যবহার শুরু হয় কখন থেকে?
  • 69. বাংলা ভাষার উৎপত্তি কোন শতাব্দীতে?
  • বাংলা ভাষার উৎপত্তি সপ্তম শতাব্দীতে ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লার মতে, তবে বাংলা ভাষার উদ্ভব সম্পর্কে অধিকাংশ ভাষাবিদের মত দশম শতাব্দী ।

  • 70. আধুনিক বাংলা ভাষার পরিধি কত সাল থেকে শুরু হয়েছে?
  • 71. মধ্য যুগের বাংলা ভাষার পরিধি কত সাল পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল?
  • মধ্য যুগের বাংলা ভাষার পরিধি ১২০১-১৮০০ সাল পর্যন্ত, কিন্তু এর মধ্য ১২০১-১৩৫০ পর্যন্ত সময়কে বাংলা সাহিত্যর 'অন্ধকার যুগ' বলা হয়।

  • 72. ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে প্রাচীন যুগের পরিধি কত পর্যন্ত বিস্তৃৃত ছিল?
  • 73. বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে প্রধানত কয়টি যুগে ভাগ করা?
  • বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে যুগ প্রধানত তিনটি । ১) প্রাচীন যুগ বা আদি যুগ (৬৫০-১২০০), ২) মধ্য যুগ (১২০১-১৮০০), ৩) আধুনিক যুগ (১৮০১-বর্তমান পর্যন্ত)।

  • 74. বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস ও ইংরেজী সাহিত্যের ইতিহাস এ দুটির মধ্যে পুরাতন কোনটি?
  • 75. বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে যুগ বিভাগ কয়টি?
  • বাংলা  সাহিত্যের  যুগ বিভাগ মোট তিনটি ভাগে বিভক্ত

    ১. আদিযুগ (৬৫০-১২০০ খ্রী:)

    ২. মধ্যযুগ (১২০১-১৮০০ খ্রী:)

    ৩. আধুনিক যুগ (১৮০১ খ্রী: -বর্তমান)

  • 76. কোন শাসনামলে চর্যাপদ রচিত হয়েছে বলে জানা যায়?
  • বাংলা ভাষার প্রথম কবিতা সংকলন এবং বাংলা ভাষার আদি নিদর্শন চর্যাপদ রচিত হয়েছে পাল আমলে।

  • 77. বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস কত বছরের পুরনো বলে মনে করা হয়?
  • বাংলা সাহিত্যর ইতিহাস ১০০০ বছরের পুরনো বলে মনে করা হয়।

  • 78. রবীন্দ্র যুগ কোন সময়কে বলা হয়?
  • ১৯০১-১৯৪০ সময়কাল বাংলা সাহিত্য রবীন্দ্র যুগ নামে পরিচিত।

  • 79. ড.মুহম্মদ এনামুল হক মধ্যযুগকে কয়টি ভাগে ভাগ করেছেন?
  • ভাগ তিনটি হল-- ১) তুর্কি যুগ, ২) সুলতানী যুগ, ৩) মোগলাই যুগ।

  • 80. ড.অসিতকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগকে কয়টি ভাগে করেছেন?
  • ভাগ চারটি হল--১) প্রাক-চৈতন্য যুগ, ২)চৈতন্য যুগ, ৩) উত্তর- চৈতন্য যুগ, ৪) অষ্টাদশ শতাব্দী ।

  • 81. ড.সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসকে কয়টি যুগে ভাগ করেছেন?
  • পাঁচটি ভাগ হলঃক) প্রাচীন বা মুসলমান পূর্ব যুগ (৯৫০-১২০০); খ) তুর্কি বিজয়ের যুগ (১২০০-১৩০০), গ) আদি মধ্যযুগ বা প্রাক- চৈতন্য যুগ (১৩০০-১৫০০),ঘ)অন্ত মধ্যযুগ (১৫০০-১৮০০) আধুনিক বা ইংরেজি যুগ (১৮০০-বর্তমান)।

  • 82. বাংলা সাহিত্যের পঠন-পাঠনের সুবিধার জন্য বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসকে তিনটি যুগে ভাগ করা হয়েছে-- বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগ
  •  প্রাচীন যুগ --(৬৫০--১২০০), মধ্যযুগ (১২০১--১৮০০ ), আধুনিক যুগ ১৮০১ থেকে বর্তমান পর্যন্ত।

  • 83. বাংলা লিপির উৎস কি?  
  • প্রাচীন ভারতীয় লিপি দুটি। ব্রাহ্মী ও খরোষ্ঠী। ব্রাহ্মী লিপি তিন ভাগে বিভক্ত। পুর্বী লিপি, মধ্য ভারতীয় লিপি এবং পশ্চিমা লিপি। পুর্বী লিপির কুটিল রূপ হতে বাংলা লিপির উদ্ভব।

  • 84. বাংলা ভাষার আদি স্তরের স্থিতিকাল কোনটি?  
  • বাংলা ভাষার আদিস্তর ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে, দশম থেকে চতুর্দশ শতাব্দী। ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লার মতে, সপ্তম থেকে দ্বাদশ শতাব্দী।

  • 85. বাংলা সাহিত্যে সর্বাধিক সমৃদ্ধ ধারা ?  
  • ইংরেজি সাহিত্য গীতিকবিতাকে Lyric বলে। ভাবের বৈচিত্র্য ও ছন্দের বৈচিত্র্যপূর্ণ প্রকাশ গীতিকবিতার বৈশিষ্ট। কবি বিহারীলাল চক্রবর্তী বাংলা সাহিত্য গীতিকবিতার প্রবর্তক।

  • 86. কে ফোর্ট উইলিয়ম কলেজের শিক্ষক ছিলেন।

today's words

Current World

  • বাজেট ২০২০-২০২১ এর ঘােষক কে ?

    Ans: আ হ ম মুস্তফা কামাল

  • বাজেট ২০২০-২০২১ উপস্থাপন করা হয় কবে?

    Ans: ১১ জুন ২০২০

  • ১৮তম বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ কোথায় অনুষ্ঠিত হবে?

    Ans: ওরেগন,  রাশিয়া

  • View All

Blog Category

Features

  • বিসিএস, ব্যাংক, শিক্ষক নিবন্ধন, পিএসসিসহ সব ধরনের MCQ প্রশ্ন এবং সমাধান,
  • অধ্যায় অনুযায়ী অনুশীলন,
  • ইংরেজি এবং গণিত এর জন্য সহজ কৌশল,
  • অসংখ্য মডেল পরীক্ষা,
  • পরীক্ষার পর্যালোচনা,
  • সাম্প্রতিক বিষয় নিয়মিত আপডেট,
  • প্রতিদিন পাঁচটি করে vocabulary (Meaning, Synonyms, Antonyms, Example সহ )।
3977

Students

78513

Questions

150

Model Test